ঢাবি অ্যালামনাই এসোসিয়েশন ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে তিন গুণীকে সম্মাননা

ঢাবি অ্যালামনাই এসোসিয়েশন ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে তিন গুণীকে সম্মাননা

112
0
SHARE

বর্ণাঢ্য আয়োজনে গত ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবন প্রাঙ্গণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন (ডুয়া)-এর ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে। কেক কেটে ও বেলুন উড়িয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। এসোসিয়েশনের সভাপতি এ. কে আজাদ-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম।  অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন সংগঠনের মহাসচিব রঞ্জন কর্মকার।

উদ্বোধনী বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনাইদের জন্য আজ একটি গর্বের ও সম্মানের দিন। দুটি কারণে এ গর্ব। প্রথমত, অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন ৭০ বছর পার করছে ও নিজেদের তিন কৃতী মানুষকে সম্মান দেখাতে পারছে। দ্বিতীয়ত, এ বিশ্ববিদ্যালয়েরই প্রাক্তন ছাত্রী, প্রাক্তন অ্যালামনাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দু-দুটি গুরুত্বপূর্ণ পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। মিয়ানমার থেকে প্রাণভয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে, পাশাপাশি সংকট সামাল দিতে অনুকরণীয়, দূরদর্শী ও বিচক্ষণ নেতৃত্ব দিয়ে তিনি যে ভূমিকা রেখেছেন, সেসবের স্বীকৃতি হিসেবে তাকে ‘ইন্টারন্যাশনাল অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ ও ‘স্পেশাল রিকগনিশন ফর আউটস্ট্যান্ডিং লিডারশিপ’ দেওয়া হয়। এ স্বীকৃতি অ্যালামনাইদের জন্যও গর্বের বিষয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম বলেন, জ্ঞান বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কী অবদান রেখেছে তা আমি জানি না। কিন্তু এই বিশ্ববিদালয় আমাদের একটি স্বাধীন দেশ উপহার দিয়েছে। বঙ্গবন্ধু এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। বিশ্বের আর কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের এত গৌরব দাবি করতে পারবে কিনা সন্দেহ।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানে রাজনৈতিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক কর্মকা-ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য তিন গুণীজনকে সম্মাননা দেওয়া হয়। সম্মাননাপ্রাপ্তরা হলেন- স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ও শাইখ সিরাজ এবং বাংলা একাডেমি রবীন্দ্র পুরস্কারপ্রাপ্ত ফাহিম হোসেন চৌধুরী। অ্যালামনাই ফ্লোরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সম্মাননাপ্রাপ্তদের ফুল দিয়ে উষ্ণ শুভেচ্ছা জানিয়ে, উত্তরীয় পরিয়ে পুরস্কার দেওয়া হয়।

সম্মাননা পেয়ে নিজের অনুভূতির কথা জানাতে গিয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় উপমহাদেশের অনন্য একটি বিশ্ববিদালয়। জাতিসত্তা সৃষ্টি ও গঠনে এর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই এসোসিয়েশন আমাকে যে সম্মাননা দিচ্ছে তার জন্য আমি গর্ববোধ করছি এবং সানন্দে গ্রহণ করছি।

এছাড়াও, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ এবং রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী ফাহিম হোসেন চৌধুরী তাঁদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

উল্লেখ্য, গত ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ছিল অ্যাসোসিয়েশনের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ১৯৪৯ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই এসোসিয়েশন প্রতিষ্ঠিত হয়। এ বছর অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন কৃতী অ্যালামনাইকে সম্মাননা দিল সংগঠনটি।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY