ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে দেশভাগ নিয়ে আন্তর্জাতিক সেমিনার অনুষ্ঠিত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে দেশভাগ নিয়ে আন্তর্জাতিক সেমিনার অনুষ্ঠিত

73
0
SHARE

‘পার্টিশন পলিটিক্স : ইমপ্যাক্টস অন সোসাইটি, ইকোনমি, কালচার অ্যান্ড ইন্দো-বাংলা রিলেশনস (১৯৪৭-২০১৮)’ শীর্ষক তিন দিনব্যাপী এক আন্তর্জাতিক সম্মেলন গতকাল ১১ আগস্ট ২০১৮ শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মোজাফ্ফর আহমেদ চৌধুরী মিলনায়তনে উদ্বোধন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে  সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। এতে সম্মানিত অতিথি ছিলেন ভারতের পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের মহারানা প্রতাপ চেয়ার অধ্যাপক ড. যশপাল কৌর ধানজু। অনুষ্ঠানের আয়োজন করে জানা-ইতিহাস চর্চা কেন্দ্র ও রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট কালেক্টিভ (আরডিসি)। এই আয়োজনে সহযোগিতা করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ, সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড রিসার্চ ইন আর্টস অ্যান্ড সোস্যাল সায়েন্সেস (কারাকাস), পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং ভারতীয় হাইকমিশন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম বলেন, দেশ বিভাগের মাধ্যমেই সাম্প্রদায়িক রাজনীতি ও সন্ত্রাসবাদের শুরু হয়। ৫৬ শতাংশ মানুষের ভাষা বাংলা সত্ত্বেও আমরা পাকিস্তানে মাইনরিটি হয়ে গেলাম। তারা বাংলা সংস্কৃতি-ঐতিহ্য ধ্বংস করার চেষ্টা করল। ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলন শুরু হয়। তিনি আরও বলেন, পাকিস্তান সৃষ্টির পর পাকিস্তানের ৫৬ ভাগের মানুষ ছিল বাঙালি। কিন্তু বাঙালিরা তখন সংখ্যালঘুতে পরিণত হয়। সব ক্ষেত্রে তারা বঞ্চিত হয়। ১৯৪০ সালের পর থেকে ভাষা ইস্যুতে আমাদের বিরোধিতা শুরু হয় এবং ১৯৫২ সালে এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভাষা আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়।

সভাপতির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ইতিহাসবিদ এবং রাষ্ট্রচিন্তাবিদগণ কিছু কারণ শনাক্ত করেছেন যা ১৯৪৭ সালের দেশভাগকে ত্বরান্বিত করেছে। তাদের একটি সিদ্ধান্তে প্রতিয়মান হয় যে, অন্যান্য কারণ থাকলেও রাজনীতি দেশভাগের প্রধান কারণ। তিনি আরও বলেন, দেশভাগের পর অনেকগুলো বিষয়ের জন্ম হয়। এর মধ্যে একটি হলো বাঙালি জাতীয়তাবাদ। এই জাতীয়তাবাদের ভিত্তিতে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের ফলে বাংলাদেশের জন্ম।

সেমিনারে দেশি-বিদেশি প্রায় শতাধিক গবেষক অংশ নেন।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY