ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সবসময় ভিন্ন মত ও দর্শন লালন করে- উপাচার্য

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সবসময় ভিন্ন মত ও দর্শন লালন করে- উপাচার্য

20
0
SHARE

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ পূর্তিকে সামনে রেখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির উদ্যোগে ‘কেমন চাই আগামীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভা ও ইফতার অনুষ্ঠান গতকাল ১ জুন ২০১৮ শুক্রবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের ক্যাফেটেরিয়ায় অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন প্রো-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম, প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী, বিজয় একাত্তর হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. এ জে এম শফিউল আলম ভূইয়া, জগন্নাথ হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. অসীম সরকার প্রমুখ। সমিতির সদস্যবৃন্দ মতবিনিময় সভায় অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক ও বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এতে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সভাপতি আসিফ ত্বাসীন এবং অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান নয়ন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ২০২১ সালে এমন একটি বিশ্ববিদ্যালয় চাই যা অত্যন্ত পরিকল্পিত, দূরদর্শী দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে সামনের দিনগুলোতে বিভিন্ন সমস্যা সমাধান করতে পারে। সেই ভিত্তিতে সুপরিকল্পিতভাবে সমন্বিত কিছু পদক্ষেপ নিয়ে আমরা ২০২১ সালের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বিনির্মাণ করতে চাই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সব সময় ভিন্ন মত ও দর্শন লালন করে। বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি সব মতের মিলনের এই ঐতিহ্যকে ধারণ করার জন্য সমিতিকে উপাচার্য ধন্যবাদ জানান।

প্রো-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ বলেন, ‘সাংস্কৃতিক মূল্যবোধ, ছাত্র-শিক্ষক সম্পর্ক, অভিভাবক ও সন্তানের সম্পর্ক, ইতিহাস ও ঐতিহ্য নিয়ে আমরা কাজ করছি। এর মাধ্যমেই একটা দেশজ মূল্যবোধ গড়ে উঠেবে। মূল ধারার সংস্কৃতির চর্চা করতে হবে। সত্য ও ইতিহাসের উপর যদি সংস্কৃতি দাঁড়ায় তবে আমরা যে আগামীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কথা বলছি সেটি বাস্তবায়ন হবে।’

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY