ঢাবি-এ আন্তর্জাতিক এথনোফার্মাকোলজী কংগ্রেস শুরু

ঢাবি-এ আন্তর্জাতিক এথনোফার্মাকোলজী কংগ্রেস শুরু

240
0
SHARE

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ফার্মেসী বিভাগের উদ্যোগে ‘ইন্টারন্যাশনাল সোসাইটি ফর এথনোফার্মাকোলজী’ এবং ‘সোসাইটি ফর এথনোফার্মাকোলজী ইন্ডিয়া’র সহযোগিতায় গত ১৩ জানুয়ারি ২০১৮ শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে ১৮তম আন্তর্জাতিক এথনোফার্মাকোলজী কংগ্রেস শুরু হয়েছে। বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো আয়োজিত তিনদিনব্যাপী এ কংগ্রেসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কংগ্রেসে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশে নিয়োজিত ভারতের হাইকমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা ও এমিরিটাস অধ্যাপক ড. এ কে আজাদ চৌধুরী। এছাড়াও ফার্মেসী অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. এস এম আবদুর রহমান, ঔষধ প্রশাসনের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মোস্তাফিজুর রহমান, ভারতের ছত্তিশগড়ের সাবেক গভর্নর শেখর দত্ত, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘স্কুল অব ন্যাচারাল প্রোডাক্ট এন্ড স্টাডিজ’ এর পরিচালক পুলক কে মুখার্জী প্রমুখ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন। বাংলাদেশে এই কংগ্রেসের আয়োজক কমিটির চেয়ারম্যান ও সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন যথাক্রমে অধ্যাপক ড. মো. আব্দুর রশীদ ও অধ্যাপক ড. সীতেশ চন্দ্র বাছার।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ভারত ও বাংলাদেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে বলেন, প্রকৃতির উৎস থেকেই যুগে যুগে প্রথাগত ওষুধ তৈরি হয়েছে এবং মানব সমাজের উন্নয়ন ঘটেছে। হার্বাল ওষুধের ইতিহাস শতবছরের। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উন্নয়নকল্পে গুণগত গবেষণার জন্য বর্তমান সরকারের বিভিন্ন ইতিবাচক পদক্ষেপ সম্পর্কে আলোকপাত করেন মন্ত্রী।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান আন্তর্জাতিক এ ধরণের একটি বড় সম্মেলন বাংলাদেশে আয়োজন করার জন্য উদ্যোক্তাদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশ জীব বৈচিত্র্যে অনন্য তাই প্রথাগত ওষুধের গবেষণায় দেশে অপার সম্ভাবনা রয়েছে। ঔষধি গাছের প্রাচুর্যের ফলে বাংলাদেশসহ উপমহাদেশে ওষুধ শিল্পের বিস্তৃতি ঘটেছে। ধারাবাহিকভাবে নতুন ওষুধ উদ্ভাবন এই শিল্পের আরও উন্নয়ন ঘটাবে।

‘Ethnopharmacology & Drug development: Innovation meets tradition’ প্রতিপাদ্য নিয়ে আয়োজিত এই আন্তর্জাতিক কংগ্রেসে ৩২টি দেশের ১৫০জন গবেষক, অধ্যাপক ও বিভিন্ন ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি সহ প্রায় ৮০০জন অংশগ্রহণ করছেন। এতে দেশী-বিদেশী গবেষক ও বিশেষজ্ঞবৃন্দ প্রথাগত ওষুধ, হার্বাল, ইউনানী ও হোমিওপ্যাথ ওষুধের গুণগত মান ও বৈজ্ঞানিক বৈধতাকরণ সম্পর্কে আলোকপাত করবেন।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY