ঢাবি-এ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন উপলক্ষে আলোচনা সভা

ঢাবি-এ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন উপলক্ষে আলোচনা সভা

28
0
SHARE

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়োজনে আজ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র মিলনায়তনে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। এসময় প্রো-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমাদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. রহমত উল্লাহ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স এসোসিয়েশন, ৩য় শ্রেণী কর্মচারী সমিতি, কারিগরী কর্মচারী সমিতি এবং ৪র্থ শ্রেণী কর্মচারী ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মো. এনামউজ্জামান। এছাড়া, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিপুল সংখ্যক শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বরে শহীদ শিক্ষক, সাংবাদিক, প্রকৌশলী চিকিৎসক সহ বিভিন্ন পেশার বুদ্ধিজীবীদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, এই গণহত্যা শুরু হয়েছিল ’৭১ এর ২৫শে মার্চ থেকেই। ১৯৫২ থেকে ১৯৭১ পর্যন্ত একটি চেতনা কাজ করেছে মানুষের মধ্যে। সেই চেতনা বা আদর্শটি হলো একটি উদারনৈতিক, অসাম্প্রদায়িক মানবিক গুণাবলীর চেতনা। এই চেতনা বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন বুদ্ধিজীবীরা। আর সে কারণেই পাকিস্তানীবাহিনী যখন বুঝল পরাজয় নিশ্চিত তখন তারা এই জাতিকে পঙ্গু করে দেওয়ার জন্য বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করেছে। তিনি আরও বলেন, চেতনা, আদর্শ, সত্য- এগুলো কখনও বিনাশ হয় না, এর নিজস্ব একটি শক্তি আছে। চেতনার বিকাশ ও গতিশীল রাখার জন্যই মূলত এই ধরনের আলোচনার আয়োজন করে থাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। যুগ যুগান্তরে, বংশ পরম্পরায়, প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে এই চেতনা যেন বিরাজ থাকে এবং এটিই হবে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের সর্বোত্তম উপায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সেই চেতনা ধারণ করে এবং শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে সেই চেতনার বিকাশ ঘটবে বলে উপাচার্য আশা প্রকাশ করেন।
শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিস্তারিত কর্মসূচী গ্রহণ করে। কর্মসূচীর মধ্যে ছিল- উপাচার্য ভবনসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রধান ভবনে কালো পতাকা উত্তোলন, শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে জমায়েত, বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় মসজিদ সংলগ্ন কবরস্থান, জগন্নাথ হল স্মৃতিসৌধ ও বিভিন্ন আবাসিক এলাকার স্মৃতিসৌধে পু®পস্তবক অর্পণ, মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে পু®পস্তবক অর্পণ, আলোচনা সভা প্রভৃতি। এছাড়া, বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় মসজিদসহ বিভিন্ন হল মসজিদ ও উপাসনালয়ে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া ও প্রার্থনা করা হয়।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY