ঢাবি-এ ‘বঙ্গবন্ধু মেধাবৃত্তি ও সম্মাননা বক্তৃতানুষ্ঠান

ঢাবি-এ ‘বঙ্গবন্ধু মেধাবৃত্তি ও সম্মাননা বক্তৃতানুষ্ঠান

15
0
SHARE

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের উদ্যোগে ‘বঙ্গবন্ধু মেধাবৃত্তি ও সম্মাননা বক্তৃতা-২০১৭’ গতকাল ৬ ডিসেম্বর ২০১৭ বুধবার হলের সেমিনার কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিভিন্ন অনুষদের ৪জন শিক্ষার্থীর মাঝে বৃত্তির চেক, সার্টিফিকেট ও ক্রেস্ট প্রদান করেন। এছাড়া, সম্মাননা বক্তৃতা করেন বিশ্ব শিক্ষক ফাউন্ডেশনের সভাপতি ও ডাকসু’র সাবেক ভিপি অধ্যাপক মাহফুজা খানম। হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল। অধ্যাপক ড. আবদুস সবুর খানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু হলের আবাসিক শিক্ষকবৃন্দ ছাড়াও বিভিন্ন অনুষদের পরিচালক, বিভাগের চেয়ারম্যানবৃন্দ ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান ১৯৫২ থেকে ১৯৭১ পর্যন্ত বিভিন্ন সংগ্রাম আন্দোলনে শহীদদের গভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে স্বীকার না করার যে প্রবণতা তা এখন আর নেই, সবার দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন হয়েছে। ইতিহাসের নিজস্ব একটি গতি আছে, সত্যের একটি শক্তি আছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এখন শুধু বাংলাদেশ বা এশিয়ার নেতা নয়, তিনি বিশ্বনেতা। বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ ইউনেস্কো কর্তৃক ‘বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য’র স্বীকৃতিপ্রাপ্তির উদ্বৃতি দিয়ে তিনি বলেন, এটি আজ বিশ্বের নিপীড়িত ও বঞ্চিত মানুষের অনুপ্রেরণা। বঙ্গবন্ধুর সার্বজনীন ভাষণ ও তার অবদান আজও স্মরণীয় এবং ভবিষ্যতেও অনুপ্রেরণা জোগাবে। পরিশেষে উপাচার্য মেধাবৃত্তিপ্রাপ্তদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, একজন ভাল শিক্ষার্থীর প্রভাব অন্যান্য অনেক শিক্ষার্থীর উপরও পড়ে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তী উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের মহাপরিকল্পনার অংশ হিসেবে বঙ্গবন্ধু হলের সৌন্দর্য্য বর্ধনের ইঙ্গিত দেন উপাচার্য।

এ বছর মেধাবৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা হলেন, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের মো. আহসান নাহিদ, ইতিহাস বিভাগের মো. হাবিবুল্লাহ, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সাইদুল হাওলাদার ও ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট এন্ড ভালনারেবিলিটি স্টাডিজ ইনস্টিটিউটের মো. হাসনাইন।

উল্লেখ্য, ৫ বছর আগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের নিজস্ব অর্থায়নে ১০লক্ষ টাকা দিয়ে শুরু হয় বঙ্গবন্ধু মেধাবৃত্তি। এই হলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিভিন্ন বিভাগে অনার্সে সর্বোচ্চ সিজিপিএ প্রাপ্তদের দেয়া হয় এই মেধাবৃত্তি।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY